মেনু নির্বাচন করুন

আলু চাষ

পৃথিবীর ৪০টিরও বেশি দেশে আলু প্রধান খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। পুষ্টির দিক দিয়ে আলু ভাত ও গমের চেয়ে কোনো অংশেই কম নয়। অনেক ক্ষেত্রে ভাত ও রুটির চেয়ে আলুর পুষ্টিগুণ অনেক বেশি। আলুর আমিষ চাল ও গমের চেয়ে অনেক উন্নত। আলুতে চর্বির পরিমাণ অনেক কম। চাল ও গমের তুলনায় আলুতে আঁশ জাতীয় পদার্থের পরিমাণ বেশি। খাদ্যের আঁশ ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। ভাত ও আলুতে ভিটামিন-সি একেবারে নেই; কিন্তু আলুতে আছে। সমপরিমাণ ভাত ও গমের চেয়ে সিদ্ধ আলুতে খনিজ পদার্থের পরিমাণও বেশি। আলুতে ভিটামিন-বি’র পরিমাণ অন্যান্য সবজির চেয়ে বেশি। আলুর জাত : ষাটের দশক থেকে এ দেশে উচ্চ ফলনশীল জাতের আলু চাষ হয়ে আসছে। এ পর্যন্ত দেশে আলুর ৩২টি উচ্চ ফলনশীল জাত অনুমোদন লাভ করেছে। এসব জাতের মধ্যে হীরা, আইসলা, পেট্রোনিস, মুলটা, ডায়ামন্ড, কার্ডিনাল, কুফরিসিন্দুরী, চমক, ধীরা, গ্রানোলা, ক্লিওপ্যাট্রা, বিনেলা, লেডিরোসেটা, কারেজ, মেরিডিয়ান, সাগিটা ও কুইন্সি ইত্যাদিই প্রধান। তবে সারা দেশে উচ্চ ফলনশীল জাতের মধ্যে ডায়ামন্ড, গ্রানোলা, কার্ডিনাল, পেট্রোনিস ও লেডিরোসেটা জাতের আলু বেশি পরিমাণে চাষ হচ্ছে। এ ছাড়া দেশি জাতের মধ্যে লাল পাকড়ি, শিলবিলাতি, কুফরিসিন্দুরী, লাল শিল ও চল্লিশা জাতের আলুও চাষ হচ্ছে বিভিন্ন এলাকায়।বারি আলু-৭ (ডায়ামন্ড) : এটি সারা দেশে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় আলুর জাত। বাছাইয়ের মাধ্যমে উদ্ভাবিত এ জাতটি ১৯৯৩ সালে সারা দেশে চাষের জন্য অনুমোদন লাভ করে। এ আলু ডিম্বাকার, মাঝারি থেকে বড় আকৃতির। ত্বক মসৃণ হালকা হলদে। শাঁস হালকা হলদে ও চোখ অগভীর। এ জাতটি মড়ক ও অন্যান্য ভাইরাস রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন। জীবনকাল ৯০-৯৫ দিন। একরপ্রতি ফলন ১০-১২ টন।বারি আলু-৮ (কার্ডিনাল) : বাছাইয়ের মাধ্যমে উদ্ভাবন করা এ জাতটি ১৯৯৩ সালে সারা দেশে চাষাবাদের জন্য অনুমোদন লাভ করে। রঙ হালকা লালচে। আলু ডিম্বাকার ও মাঝারি আকৃতির। ত্বক মসৃণ হালকা লাল বর্ণের। শাঁস হলদে এবং চোখ অগভীর। এ জাতটি মড়ক ও অন্যান্য ভাইরাস রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন। একরপ্রতি ফলন ১০-১২ টন।বারি আলু-১৩ (গ্রানোলা) : এটিও একটি জনপ্রিয় আগাম আলুর জাত। বাছাইয়ের মাধ্যমে উদ্ভাবিত এ জাতটি ১৯৯৪ সালে সারা দেশে চাষাবাদের জন্য অনুমোদন লাভ করে। আলু গোল ডিম্বাকার ও মাঝারি আকৃতির। ত্বক অমসৃণ, হালকা তামাটে হলদে। শাঁস ফ্যাকাসে হলদে। জীবনকাল ৯০-৯৫ দিন। তবে ৭০-৭৫ দিনের মধ্যে আগাম চাষ করে সবজি হিসেবে বিক্রি করা যায়। বিদেশেও এ জাতটির চাহিদা রয়েছে। এ জাতটিও মড়ক ও অন্যান্য ভাইরাস রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন। একরপ্রতি ফলন ১৪-১৫ টন। সুপ্তিকাল বেশি হওয়ায় এ জাতের আলু ৪-৫ মাস ঘরে সংরক্ষণ করা যায়।বারি আলু-২৮ (লেডিরোসেটা) : এ জাতের আলু লাল গোলাকার। মাঝারি আকৃতির, ত্বক মসৃণ, শাঁস হলুদাভ সাদা। একরপ্রতি ফলন ১০-১২ টন।জমি তৈরি : আলু উৎপাদনের জন্য ৪-৫টি চাষ দিয়ে জমি ভালোভাবে প্রস্তুত করতে হবে।মাটি : আলু চাষের জন্য বেলে দোআঁশ ও দোআঁশ ধরনের মাটি সবচেয়ে বেশি উপযোগী।রোপণ সময় : উত্তরাঞ্চলে মধ্যকার্তিক এবং দক্ষিণাঞ্চলে অগ্রহায়ণের প্রথম সপ্তাহ থেকে ২য় সপ্তাহ পর্যন্ত সময়ে আলু রোপণ করলে ভালো ফলন পাওয়া যায়।বীজের হার : একরপ্রতি উচ্চ ফলনশীল জাতের আলু চাষের জন্য ৬০০ কেজি বীজের প্রয়োজন হয়। অনুমোদিত জাতের প্রত্যায়িত বীজ ভালো উৎস থেকে সংগ্রহ করতে হবে।রোপণ দূরত্ব : আস্ত আলু রোপণের জন্য সারি থেকে সারির দূরত্ব দিতে হবে ৬০ সেন্টিমিটার এবং আলু থেকে আলুর দূরত্ব দিতে হবে ২৫ সেন্টিমিটার। আর কাটা আলু রোপণের ক্ষেত্রে সারি থেকে সারির দূরত্ব দিতে হবে ৪৫ সেন্টিমিটার এবং আলু থেকে আলুর দূরত্ব দিতে হবে ১৫ সেন্টমিটার।সারের পরিমাণ : ভালো ফলনের জন্য আলুর জমিতে সঠিক মাত্রায় ও সঠিক সময়ে জৈব ও রাসানিক সার প্রয়োগ করতে হবে। আলুর জমিতে একরপ্রতি ৪ টন গোবর, ১০০ কেজি ইউরিয়া, ৬০ কেজি টিএসপি, ১০০ কেজি এমওপি, ৪৮ কেজি জিপসাম, ৪ কেজি জিংক সালফেট এবং অম্লীয় বেলে মাটির জন্য ৪০ কেজি ম্যাগনেসিয়াম ও বেলে মাটির জন্য একরপ্রতি ৪ কেজি বোরন সার ব্যবহার করতে হবে।সার প্রয়োগ পদ্ধতি : অর্ধেক ইউরিয়া এবং সম্পূর্ণ গোবর, টিএসপি, এমওপি, জিপসাম ও জিংক সালফেট রোপণের সময় জমিতে মিশিয়ে দিতে হবে। বাকি ইউরিয়া রোপণের ৩০-৩৫ দিন পর অর্থাৎ দ্বিতীয়বার মাটি তোলার সময় প্রয়োগ করতে হবে। অম্লীয় বেলে মাটির জন্য একরপ্রতি ৪০ কেজি ম্যাগনেসিয়াম সালফেট এবং বেলে মাটির জন্য একর প্রতি ৪ কেজি বোরন প্রয়োগ করলে ভালো ফলন পাওয়া যায়।পানি সেচ : বীজ আলু রোপণের ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে প্রথম সেচ দিতে হবে। দ্বিতীয় সেচ আলু রোপণের ৪০ থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে এবং তৃতীয় সেচ আলু রোপণের ৬০ থেকে ৬৫ দিনের মধ্যে দিতে হবে। দেশের উত্তরাঞ্চলে ভালো ফলন পেতে হলে ১০-১২ দিন পরপর জমির অবস্থা বুঝে সেচ দিতে হবে।সাথী ফসল হিসেবে চাষ : কলা, ভুট্টা ও আখের সঙ্গে সাথী ফসল হিসেবে আলুর চাষ করা যায়। এতে একই জমি থেকে একাধিক ফসল চাষ করে কৃষক আর্থিকভাবে বেশ লাভবান হতে পারেন।অন্তর্বর্তীকালীন পরিচর্যা : আলু লাগানোর ৩০-৩৫ দিন পর গাছের গোড়ায় মাটি তুলে দিতে হবে। এ ছাড়া রোগবালাই দমনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।রোগবালাই দমন : আলুর অনিষ্টকারী রোগবালাইয়ের মধ্যে নাবি ধসা রোগ অন্যতম। কুয়াশাযুক্ত মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়ায় এই রোগ দ্রুত বিস্তার লাভ করে এবং আলুর ফলন ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। এ রোগের আক্রমণে প্রথমে পাতা, ডগা ও কা-ে ছোট ভেজা দাগ পড়ে। ক্রমে দাগ বড় হয় ও পুরো পাতা, ডগা ও কা-ের কিছু অংশ ঘিরে ফেলে। বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা বেশি থাকলে ২-৩ দিনের মধ্যেই জমির অধিকাংশ ফসল আক্রান্ত হয়ে পড়ে। ভোরের দিকে আক্রান্ত পাতার নিচে সাদা পাউডারের মতো ছত্রাকের উপস্থিতি চোখে পড়ে। আক্রান্ত ক্ষেতে পোড়া পোড়া গন্ধ পাওয়া যায় এবং মনে হয় জমির ফসল পুড়ে গেছে। এ রোগের প্রতিকার হিসেবে রোগমুক্ত আলুবীজ ব্যবহার করতে হবে। আক্রান্ত জমিতে যথাসম্ভব সেচ দেয়া বন্ধ রাখতে হবে। রোগ দেখা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে ১০ লিটার পানিতে ২০ গ্রাম রিডোমিল বা ডাইথেনএম-৪৫ ইত্যাদি ছত্রাকনাশক মিশিয়ে আলু ক্ষেতে ১০-১২ দিন পর পর স্প্রে করতে হবে।


Share with :

Facebook Twitter